শ্রীপুরে ব্যবসায়ীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন।

83

গাজীপুর প্রতিনিধিঃ গাজীপুুরের শ্রীপুরের মাওনা চৌরাস্তা ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি মোশারফ সরকারসহ স্থানীয় ব্যবসায়ী নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ করা হয়েছে।

শনিবার (২০ই জুন) মাওনা চৌরাস্তায় সংগঠনের কার্যালয়ে এমন অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলনে করেন মাওনা চৌরাস্তা ব্যবসায়ী মালিক সমিতি সদস্য ও স্থানীংয় ব্যবসায়ীরা। সংবাদ সম্মেলণে দ্রত সময়ের মধ্যে ব্যবসায়ীদের নামে করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেন ব্যবসায়ীরা।

লিখিত বক্তব্যে মোশারফ সরকার বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ মাওনা চৌরাস্তার ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে একটি চক্র নিয়মিত চাঁদা আদায় করে আসছিল। গত ২০১৯ সালের ১০জুলাই মাওনা চৌরাস্তার ট্র্রাকস্ট্যান্ডে চাঁদাবাজিকালে ডিবি পুুলিশ রিপন ও রাব্বি নামের দ্ইু চাঁদাবাজকে হাতেনাতে আটক করেন। এঘটনায় সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে নয়জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৮/১০জনকে আসামীকে করে শ্রীপুর থানায় একটি চাঁদাবাজি দায়ের করেন। এসময় রিপন, রাব্বি, আনোয়ার ও সিরাজ দীর্ঘদিন কারাভোগ করেন। আবারো পরিবহনে চাঁদাবাজি করার সময় গত ৬জুন মাসুদ রানা, জাকির ও সোলায়মানকে আটক করে ডিবি পুলিশ। পরে পুলিশবাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে গত ৮ই জুন স্থানীয় জুয়েল মাহমুদ আসিফ, জাহিদুল ইসলাম জাহিদ ও ফরহাদের নেতৃত্বে সরকারী বিধি নিষেধ আমান্য করে ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি মোশারফ সরকারের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে। সমাবেশ থেকে মোশারফ সরকারের বিরুদ্ধে না না ধরণের অশালীন, কুরুচিপূর্ণ, উস্কানিমমূলক বক্তব্যে প্রদান ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসুবকের বিভিন্ন আইডি থেকে নানা ধরনের আপত্তিকর স্ট্যাটাস প্রদান করেন। এঘটনায় মোশারফ সরকার গত ১৩ই জুন তিন জনের নাম

উল্লেখ করে শ্রীপুর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে জুয়েল মাহমুদ আসিফ ও ফরহাদ শেখ একই ঘটনা মামলার বিবরণীতে উল্লেখ করে মোশারফ সরকারসহ কয়েকজন ব্যবসায়ীদের নাম উল্লেখ করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন। এতে ব্যবসায়ীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সঠিক তদন্ত করে এসব মিথ্যা মামলায় হয়রানি বন্ধ ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান ব্যবসায়ীরা। অন্যথায় ব্যবসায়ীরা কঠোর আন্দোলনসহ বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচী ঘোষণা করবে বলে জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলন থেকে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন হাজী এন্টারপ্রাইজের মালিক রিয়াজ উদ্দিন, ব্যবসায়ী আলম, রেফাজ আহমেদ মিলন, রুহুল আমিন, সিররাজুল ইসলাম, ফিরোজ আহমেদ রাসেল, জয়নাল, আকতার প্রমুখ।